মালদায় নাবালিকা খুনে 'নরবলি' তত্ত্ব, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেতেই মত পুলিশের একাংশের

author img

By ETV Bharat Bangla Desk

Published : Feb 8, 2024, 9:50 AM IST

Etv Bharat

Human Sacrifice in Malda: নাবালিকা খুুনে প্রথমেই গ্রেফতার হয়েছে দাদা ৷ এবার বোনের ময়নাতদন্তের রিপোর্টে নরবলির তত্ত্ব উঠে আসছে পুলিশের একাংশের মতে ৷

মালদা, 8 ফেব্রুয়ারি: মালদা শহরের পঞ্চম শ্রেণির নাবালিকাকে খুনের পূর্ণাঙ্গ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেতেই সামনে এল 'নরবলি' তত্ত্ব ৷ এই প্রশ্ন উঠেছে পুলিশের একাংশের তরফ থেকেই ৷ যদিও বেশিরভাগ আধিকারিক এখনই এই তত্ত্ব বিশ্বাস করতে রাজি নন ৷ এই পরিস্থিতিতে খুনে ব্যবহৃত অস্ত্রটি খুঁজে পেতে মরিয়া জেলা পুলিশ ৷ কিন্তু মূল অভিযুক্ত এখনও পুলিশি তদন্তে অসহযোগিতা করে চলেছে বলে জানা গিয়েছে ৷ সে বিভিন্নভাবে পুলিশকে বিভ্রান্ত করারও চেষ্টা করছে ৷ এই অবস্থায় অস্ত্র উদ্ধারে অন্য পথে হাঁটতে চলেছে মালদা জেলা পুলিশ ৷

বুধবারই কিশোরী খুনের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পুলিশের হাতে এসে পৌঁছেছে ৷ সেই রিপোর্টও অস্বচ্ছ ৷ সেখানে বলা হয়েছে, ভীষণ কোনও ধারালো ও ভারী অস্ত্রের সাহায্যে নাবালিকার ধড় ও মুণ্ডু আলাদা করা হয়েছে ৷ মৃতদেহের মুখ ও ঘাড়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে ৷ যেখান থেকে মুণ্ডু বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে, সেখানকার টিস্যু কিংবা রক্তনালীগুলি সেভাবে ছিঁড়ে যাওয়ার চিহ্ন নেই ৷ অর্থাৎ এক কোপে মুণ্ডু বিচ্ছিন্ন করা হতে পারে ৷ খাবার খাওয়ার চার থেকে ছ'ঘণ্টার মধ্যে কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে ৷ কিন্তু তার সঙ্গে যৌন নির্যাতনের কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি ৷

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পরেই পুলিশের একাংশ মনে করছে, যেভাবে রিপোর্টে খুনের কথা বলা হয়েছে, তাতে এই ঘটনার পিছনে 'নরবলি' তত্ত্ব উড়িয়ে দেওয়া যায় না ৷ কিন্তু বোনকে খুনে ধৃত দাদা পুলিশি জেরায় বারবার দাবি করেছে, সে একটি ছুরি গলায় ঠেকিয়ে ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছিল ৷ অন্ধকারে কিছুতে পা আটকে বোন সেই ছুরির উপর পড়ে যায় ৷ তাতে তার ধড় ও মুণ্ডু আলাদা হয়ে যায় ৷ কিন্তু পুলিশের অনুমান, একটি ছুরির যা ওজন তাতে 11 বছরের একটি দেহের ধড়-মুণ্ডু এভাবে আলাদা হতে পারে না ৷ এই অবস্থায় পুলিশি তদন্তে খুনে ব্যবহৃত অস্ত্র সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে ৷

এদিকে এই ঘটনায় ধৃত যুবক একেকবার একেক কথা বলে এখনও পুলিশকে বিভ্রান্ত করতে চাইছে ৷ জেরায় সে জানিয়েছে, খুনের পর মহানন্দা নদীতে সে অস্ত্র ফেলে দিয়েছে ৷ কিন্তু ঠিক কোথায় সে অস্ত্র ফেলেছে তা এখনও পুলিশকে জানায়নি ৷ তাই পুলিশ এবার ঘটনার দিন বিভিন্ন এলাকায় থাকা সিসিটিভির ফুটেজ খতিয়ে দেখে তদন্তে এগোতে চাইছে ৷ গতি আনতে বদল করা হয়েছে ঘটনার তদন্তকারী অফিসারকেও ৷

এই বিষয়ে পুলিশ সুপার প্রদীপকুমার যাদব বলেন, "আমরা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেয়েছি ৷ কিছু বিষয় নিয়ে তদন্তকারী চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন রয়েছে ৷ ফরেনসিক দল ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু নমুনা সংগ্রহ করে নিয়ে গিয়েছে ৷ তবে তার রিপোর্ট কবে পাওয়া যাবে, তা জানা নেই ৷ খুনে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধারে সমস্ত চেষ্টা চালানো হচ্ছে ৷ তবে ধৃত যুবক এখনও পুলিশি তদন্তে সেভাবে সহযোগিতা করছে না ৷ সবদিক বিবেচনা করেই ঘটনার তদন্ত চলছে ৷"

আরও পড়ুন :

  1. উদ্ধার মুণ্ডহীন দেহ, নাবালিকাকে খুনের প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ মালদা
  2. অকুস্থলেই পড়ে নিহতের চশমা-মদের বোতল, বৃষ্টিতে নমুনা নষ্টের আশঙ্কা, মালদায় কিশোরী খুনের পুলিশি তদন্তে প্রশ্ন
  3. বোনকে খুনের কথা স্বীকার মাদকাসক্ত দাদার, মালদা শহরজুড়ে চলছে মাদক বিরোধী প্রচার
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.