তৃণমূল নেতাকে চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ কান্দি আদালতে

author img

By ETV Bharat Bangla Desk

Published : Feb 7, 2024, 8:10 PM IST

etv bharat

TMC Leader Murder Case: 2021 সালের ডিসেম্বরে মুর্শিদাবাদের কান্দিতে এক তৃণমূল নেতা খুন হন ৷ সেই ঘটনার পরই পুলিশ চারজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে ৷ বুধবার কান্দি আদালত ওই চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিল ৷

কান্দি, 7 ফেব্রুয়ারি: তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা খুনে চারজন আসামিকে যাবজ্জীবনের সাজা শোনালো আদালত ৷ বুধবার মুর্শিদাবাদের কান্দি সেশন ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারক অরিন্দম দত্ত এই সাজা ঘোষণা করেন ৷ তবে এই নিয়ে অখুশি নিহতের পরিবার ৷ তারা আসামীদের ফাঁসির সাজার দাবিতে সরব হয়েছে ৷

2021 সালের 10 ডিসেম্বর সন্ধ্যায় বাড়ির কাছেই দুষ্কৃতিদের ধারালো অস্ত্রের কোপে খুন হন তৃণমূল নেতা তথা রেশন ডিলার নেপাল সাহা ৷ তিনি ছিলেন মুর্শিদাবাদের আন্দুলিয়া অঞ্চলের তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি ৷ এই ঘটনার পিছনে পুরনো বিবাদ ছিল বলে তদন্তে তথ্য উঠে আসে ৷ কোনও রাজনৈতিক কিছু খুঁজে পায়নি পুলিশ ৷

এই ঘটনায় অভিযোগ ওঠে চারজনের বিরুদ্ধে । ঘটনার পরের দিন কান্দি থানায় লিখিত অভিযোগ জমা পড়ে । পরে কান্দি থানার পুলিশ বীরভূমের সাঁইথিয়া থেকে গ্রেফতার করে অভিযুক্ত চারজনকে । খুন করে চম্পট দিয়েছিল তারা । সাঁইথিয়াতে এক আত্মীয়ের বাড়ীতে ঠাঁই নিয়েছিল । সেখান থেকে বাইরে পালানোর উদ্দ্যেশ্য ছিল ৷ তার আগেই পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে ৷

গ্রেফতারের পর তাদের আদালতে পেশ করা হয় ৷ তারপর থেকে জেল হেফাজতেই ছিল তারা । বুধবার কান্দি সেশন ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টের বিচারক অরিন্দম দত্ত নেপাল সাহাকে খুনের দায়ে তাদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন ৷ তাদের 50 হাজার টাকা জরিমানাও করেছে আদালত ৷ জরিমানা অনাদয়ে আরও দু’বছর জেলে থাকতে হবে বলে নির্দেশ আদালতের ৷

তবে এই বিষয়ে খুশি নয় নেপাল সাহার পরিবার । সাজা ঘোষণা হওয়ার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন মৃত নেপাল সাহার স্ত্রী যমুনা সাহা । তিনি জানিয়েছেন, যেভাবে তাঁর স্বামীকে নৃশংসভাবে গুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে খুন করা হয়েছিল, তাতে আসামীদের ফাঁসি হওয়া উচিত ছিল ৷

আরও পড়ুন:

  1. ইসিএলে চাকরির লোভে বাবাকে 'খুন', গ্রেফতার গুণধর ছেলে
  2. মদ্যপ অবস্থায় বচসা, বন্ধুর হাতে কেরলে খুন মুর্শিদাবাদের পরিযায়ী শ্রমিক !
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.