ক্যানসারের চিকিৎসায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাউন্সেলিং, আর কী জানা জরুরি

author img

By ETV Bharat Bangla Desk

Published : Feb 5, 2024, 7:41 PM IST

ETV BHARAT

ক্যানসার বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ংকর রোগগুলির মধ্যে অন্যতম । বিশ্ব ক্যানসার দিবসে এই মারণ ব্যাধি সম্পর্কে নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানালেন হায়দরাবাদের কেআইএমএস-ঊষালক্ষ্মী সেন্টার ফর ব্রেস্ট ডিজিজের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ডা. পি রঘু রাম ওবিই ৷

হায়দরাবাদ, 5 ফেব্রুয়ারি: ক্যানসার বিশ্বের অন্যতম প্রধান ঘাতক । ভারতে প্রতি বছর প্রায় 14,00,000 জনের ক্যানসার ধরা পড়ে এবং ক্যানসারে প্রাণ হারান 8,50,000 জনেরও বেশি মানুষ ৷ ভারতে ক্যান্সার 'সুনামি' দ্রুত জনস্বাস্থ্যের জন্য একটি প্রধান উদ্বেগের বিষয় হয়ে উঠেছে ।

ক্যানসার নিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর পাশাপাশি রোগীদের পরিষেবার উন্নতি ও এই রোগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সারা বিশ্বে সরকার ও ক্ষমতায় থাকা ব্যক্তিদের উপর চাপ দেওয়ার জন্য বিশ্ব ক্যানসার দিবস 4 ফেব্রুয়ারি পালিত হয় ৷ ক্যানসার নির্ণয়ের ফলে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে - প্রায়ই রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার পরও থেকে যায় শারীরিক, আর্থিক এবং মানসিক যন্ত্রণা । আমরা দুর্দান্ত বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির যুগে বাস করলেও, দুর্বল যোগাযোগ দক্ষতা প্রকৃতই ভারতে ক্যানসারের কার্যকর চিকিৎসার ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান বাধা ।

ক্যানসার নির্ণয়ের বিষয়ে জানতে পারাটাই মানুষের কাছে একটা বিরাট ধাক্কা ৷ বিশেষত যখন ওই রোগ বাসা বাঁধে অল্পবয়সিদের শরীরে ৷ প্রথমেই এটা কেউ বিশ্বাস করতে চান না ৷ অনেকেরই মনে প্রশ্ন থাকে যে আদৌ কি এই মারণ ব্যাধি হয়েছে ? এই রোগের বিষয়ে জানার পরই উদ্বেগ, রাগ, একঘরে হয়ে থাকা ও মৃত্যুর ভয়ের মতো বিষয়গুলির কারণে জীবনের স্বাভাবিক গতি হারায়, যা খুবই সাধারণ এবং স্বাভাবিক । স্তন ক্যানসার ধরা পড়লে আগেই মনে প্রশ্ন আসে যে, 'আমি কি আমার স্তন হারাব ?'

ক্যানসার শরীর, মন এবং আত্মাকে প্রভাবিত করে । এবং তাই, শুধুমাত্র শরীরের চিকিত্সা যথেষ্ট নয় । কাউন্সেলিং ক্যানসারের যত্নের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান, যা রোগী এবং তাঁদের আত্মীয়দের আরও ভালোভাবে জানানোর, আরও ভালভাবে প্রস্তুত হওয়ার এবং আরও গুরুত্বপূর্ণভাবে, চিকিত্সার প্রতিটি পর্যায়ে আরও নিয়ন্ত্রিত আচরণের আলাদা সুযোগ করে দেয় ।

ক্লিনিকাল দক্ষতা এবং কার্যকর যোগাযোগ উভয়ই প্রত্যেক ডাক্তারের জন্য অপরিহার্য দক্ষতা । আমার মতে, কাউন্সেলিং ক্যানসারের চিকিত্সার 50% এরও বেশি জুড়ে রয়েছে ৷ কারণ মন, শরীর এবং আত্মার পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এই কাউন্সেলিং । এটি একটি সংবেদনশীল এবং সহায়ক পরিবেশে রোগ নির্ণয়/বিভিন্ন চিকিত্সার বিকল্পগুলি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ এবং রোগীর মধ্যে একটি নিরবচ্ছিন্ন আলোচনা চালায় । একইভাবে, কাউন্সেলিং সেশনের সময় পর্যাপ্ত মনস্তাত্ত্বিক এবং মানসিক সমর্থন দেওয়া হয়, যা তাঁদের জীবনে 'অনাকাঙ্খিত ভিজিটর'-এর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় 'অভ্যন্তরীণ শক্তি' এবং সংকল্প প্রদান করে ।

রোগীদের বিভিন্ন তদন্ত পদ্ধতির তাৎপর্য, চিকিৎসার বিকল্প/তাঁরা দৈনন্দিন জীবনে কীভাবে প্রভাব ফেলতে পারে, সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া, স্বল্প/দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা এবং আরও অনেক বিষয়ে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে সক্রিয়ভাবে উৎসাহিত করা উচিত । সহজ, কার্যকরী এবং সহজে বোঝার মতো করে উত্থাপিত প্রশ্নগুলি স্পষ্ট করা বিশেষজ্ঞের দায়িত্ব ।

নন-মেডিক্যালের ভাষায় ওষুধের কথা বলাটা কমিউনিকেশনের একটা বিশেষ আর্ট ৷ খারাপ খবরটা জানানোর সময় সহানুভূতির সঙ্গে সতর্ক ভাবে তা করতে হবে ৷ রোগীদের সময় দেওয়া এবং তাঁদের কথা শোনার মধ্যে ডাক্তাররা অনেক কিছু খুঁজে পেতে পারেন । আমি প্রতিদিন নিজেকে মনে করিয়ে দিই যে, রোগীর কথা শোনা কথা বলার চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ । আজকের দিনে এবং পরীক্ষার উপর অত্যধিক নির্ভরতার যুগে কারও এটা ভোলা উচিত নয় যে, একটি অবস্থার নির্ণয় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভালো ইতিহাস গ্রহণ এবং শারীরিক পরীক্ষার মাধ্যমে করা যেতে পারে । তাই ভালো শ্রবণশক্তি হল সর্বোত্তম ডায়াগনস্টিক পদ্ধতি ।

কয়েক বছর আগে পর্যন্ত, 'যোগাযোগ দক্ষতা' বা কমিউনিকেশন স্কিল ভারতীয় মেডিক্যাল পাঠ্যক্রমের অংশ ছিল না । যদিও এটি এখন 2019 সাল থেকে নতুন মেডিক্যাল পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, তবুও দেশজুড়ে এখনও কোনও কাঠামোগত, অভিন্ন এবং শক্তিশালী মূল্যায়ন প্রক্রিয়া নেই । এখানে উল্লেখ করা প্রাসঙ্গিক যে, জ্ঞানী এবং দক্ষ যেই হোক না কেন, পর্যাপ্ত যোগাযোগ দক্ষতা প্রদর্শন না করে ব্রিটেনে আন্ডারগ্রাজুয়েট এমবিবিএস কোর্স বা স্পেশালিস্ট ফেলোশিপ পরীক্ষা (স্নাতকোত্তর কোর্স) পাশ করা কার্যত অসম্ভব । এই বিভাগে একটি ব্যর্থতা মানে একটি সামগ্রিক ব্যর্থতা, এমনকি যদি কেউ পরীক্ষার অন্যান্য দিকগুলিতে ভালোও করেন তাও সেটাই মনে করা হয় ।

বিশ্ব ক্যানসার দিবস উপলক্ষে যোগাযোগের দক্ষতাকে নিশ্চিত করতে এবং এর আনুষ্ঠানিক দৃঢ় মূল্যায়ন ভারতে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর মেডিক্যাল পাঠ্যক্রমের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ করে তোলার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ করছি । আমি 19 শতকের একজন চিকিত্সক এডওয়ার্ড লিভিংস্টন ট্রুডোর একটি মর্মান্তিক বক্তব্য দিয়ে শেষ করছি, যা আজও প্রাসঙ্গিক - "কিওর সামটাইমস, রিলিভ অফেন, বাট, কমফোর্ট অলওয়েজ ৷" অর্থাৎ কখনও নিরাময় করুন, প্রায়ই উপশম করুন, কিন্তু সর্বদা আরাম দিন ।

(এখানে প্রকাশিত মতামত লেখকের)

আরও পড়ুন:

  1. জীবন যুদ্ধের বৈতরণী পার হোক এইভাবেই, বিশ্ব ক্যানসার দিবসে বেঁচে থাকার বার্তা তারকাদের
  2. ধূমপান না-করলেও কর্কট রোগে আক্রান্ত হতে পারে ফুসফুস, ক্যানসার দিবসে রইল চিকিৎসকের পরামর্শ
  3. মৃত্যুর খবর রটিয়ে ক্যানসার সচেতনতার প্রচার, পুনমকাণ্ডে পুলিশের দ্বারস্থ সিনে অ্যাসোসিয়েশন
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.