নেই পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ, প্রচণ্ড শীতে গাছতলাতেই খুদেদের পঠনপাঠন চন্দ্রকোনায়

author img

By ETV Bharat Bangla Desk

Published : Jan 30, 2024, 9:10 PM IST

Primary School

Primary School Poor Condition: প্রায় একশো বছরের পুরনো স্কুলের ভগ্নদশা ৷ নেই পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ ৷ শীতের সকালে গাছতলায় শিক্ষকেরা ক্লাস নিচ্ছেন পড়ুয়াদের ৷ প্রশাসনকে জানিয়েও মেলেনি সুরাহা ৷ ক্ষুব্ধ শিক্ষক শিক্ষিকা-সহ অভিভাবকেরা ৷

গাছতলায় খুদেদের পঠনপাঠন চন্দ্রকোনায়

চন্দ্রকোনা, 30 জানুয়ারি: আগামী বছর শতবর্ষ পূর্ণ করতে চলেছে স্কুল ৷ কিন্তু স্কুলে নেই পর্যাপ্ত শ্রেণিকক্ষ ৷ তাই শীতের সকালে একপ্রকার বাধ্য হয়েই গাছের তলায় চলছে চন্দ্রকোনার চাঁদুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খুদে পড়ুয়াদের ক্লাস । বারবার শ্রেণিকক্ষ বাড়ানোর পাশাপাশি নতুন স্কুল ভবনের দাবি জানানো হয়েছে প্রশাসনের কাছে ৷ তবে তাতে কোনো সুরাহা মেলেনি বলে অভিযোগ শিক্ষক-শিক্ষিকা থেকে অভিভাবকদের । খোলা আকাশের নীচে এভাবে পঠনপাঠনে ভোগান্তির শিকার ছাত্র-ছাত্রী থেকে স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা । বর্ষাকালে এই ভোগান্তি পৌঁছয় চরমে ৷

ঘটনাটি পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার চন্দ্রকোনা-1 নম্বর ব্লকের মনোহরপুর 2 নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের চাঁদুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের । জানা গিয়েছে, 1925 সালে স্থাপিত এই স্কুল । বর্তমানে স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকার সংখ্যা পাঁচ । আর ছাত্রছাত্রী প্রি প্রাইমারি থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত মোট 200 জন । চাঁদুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রয়েছে ছোটো আকারের তিনটি শ্রেণিকক্ষ ও একটি অফিস রুম । তবে ওই তিনটি শ্রেণিকক্ষেরই বেহাল অবস্থা ৷ কক্ষের ভিতরে কোথাও দেওয়ালে ফাটল ধরেছে ৷ আবার কোথাও ছাদের অংশ খসে পড়েছে ।

অন্যদিকে স্কুল ভবনের পিছনের দিকের দেওয়াল থেকে মাটি আলগা হয়ে গিয়েছে । যার ফলে এই দেওয়াল যাতে হেলে না পড়ে তার জন্য পিলার দিয়ে ঠেকানো রয়েছে । যদিও পরিকাঠামোর এমন ভগ্নদশা সত্ত্বেও রীতিমতো ঝুঁকি নিয়ে ছোটছোট ছেলেমেয়েদের পঠনপাঠন চলছে শ্রেণিকক্ষের ভিতরে ও বাইরে । প্রধান শিক্ষক অমরজিৎ খান বলেন, "এই স্কুলে তিনটি শ্রেণিকক্ষে তিনটি ক্লাস নেওয়া হয় ৷ বাকি দুটির স্কুল চত্বরেই খোলা আকাশের নীচে গাছের তলায় ত্রিপল পেতে ক্লাস চলে ।" স্থানীয়দের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর গ্রিভেন্স সেলেও অভিযোগ করা হয়েছে ৷ তাতেও কোনো সদুত্তর মেলেনি ।

এ বিষয়ে চন্দ্রকোনা-1 সার্কলের স্কুল পরিদর্শক কৌশিক ঘোষ অবশ্য বলেন, "চাঁদুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এবারে হঠাৎ করে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে । কারণ নিকটবর্তী একটি শিশুশিক্ষা কেন্দ্র বন্ধ হয়ে গিয়েছে ৷ যার ফলে ওই কেন্দ্র থেকে 50-60 জন অতিরিক্ত ছাত্রছাত্রীর চাপ এই প্রাথমিক বিদ্যালয়কে বহন করতে হচ্ছে । ফলে শ্রেণিকক্ষের বেশি প্রয়োজন হয়ে পড়েছে এখন । আমরা ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনকে জানিয়েছি ৷ আশা করি দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে ।"

আরও পড়ুন:

  1. ক্লাস ঘর থেকে শৌচালয় সবটাই বেদখল, ধুঁকছে 125 বছর পুরোনো এমএল জুবলি স্কুল
  2. ভগ্নপ্রায় স্কুলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস 127 জন পড়ুয়ার, দেখেও নির্বিকার প্রশাসন
  3. জোটেনি স্কুল ঘর, তাই গাছের তলায় পঠন-পাঠন, বৃষ্টি হলেই ছুটি
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.