ETV Bharat / state

গাছের তৈরি তানপুরা-গদা-টোপর পাড়ি দেয় বিদেশে, 'সরকার কথা রাখেনি' ; আক্ষেপ শিল্পীর - Tribal Artist Debu Murmu

author img

By ETV Bharat Bangla Team

Published : Jun 22, 2024, 9:08 PM IST

Updated : Jun 22, 2024, 9:23 PM IST

Tribal Handcraft Artist: বর্ষীয়ান এই শিল্পী আজও গাছগাছালি দিয়ে নিজের শিল্পসত্ত্বা ধরে রেখেছেন ৷ পাতা, ঘাস দিয়ে পৌরাণিক কাহিনি, রামায়ণের কাহিনিও বর্ণিত আছে শিল্পী দেবু মুর্মুর হাতের তৈরি গদা-তানপুরা-কলসির গায়ে ৷

Artwork
দেবু মুর্মুর শিল্পকর্ম (ইটিভি ভারত)

বোলপুর, 22 জুন: ইউক্যালিপটাস গাছের ছাল দিয়ে তানপুরা-ঘড়া থেকে শুরু করে ঘাস-পাতা দিয়ে নানা শিল্পকর্ম ৷ আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মুর এই সকল নিখুঁত শৈল্পিক কাজ পাড়ি দিয়েছে দেশ ছাড়িয়ে সূদুর আমেরিকা, ইংল্যান্ড, জাপান, চিন, বাংলাদেশে ৷ তৎকালীন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য তাঁকে সম্মানও জানিয়েছেন ৷ পেয়েছেন জাতীয় মেরিট ৷ তবে বর্তমান সরকার তাঁর দিকে ফিরেও চায়নি, কথা দিয়ে কথা রাখেনি ৷ যদিও, এই নিয়ে আক্ষেপ নেই পাড়ুইয়ের সরপুকুর ডাঙার আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মু ও তাঁর পরিবারের ৷

বর্ষীয়ান শিল্পী দেবু মুর্মুর গাছগাছালি দিয়ে তৈরি শিল্পকর্ম (ইটিভি ভারত)

বর্ষীয়ান এই শিল্পী আজও গাছগাছালির সামগ্রী দিয়েই নিজের শিল্পসত্ত্বা ধরে রেখেছেন ৷ বীরভূম জেলার পাড়ুই থানার সাত্তোর গ্রাম পঞ্চায়েতের আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রাম সরপুকুর ডাঙা । এই গ্রামের বাসিন্দা শিল্পী দেবু মুর্মু ৷ তালপাতা, শালপাতা, খেজুরপাতা, কলাগাছ, ঘাস, ইউক্যালিপটাস গাছের ছাল, তেঁতুল গাছের শিকড়, বিভিন্ন গাছের বীজ দিয়ে নানা শিল্পকর্ম গড়ে তোলায় দক্ষ তিনি। এই জিনিস দিয়ে তাঁর তৈরি তানপুরা, গদা, কলসি, খর্গ, গহনা, হাতপাখা, টোপর চোখে পড়ার মতো ৷

Tribal Artist Debu Murmu
আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মু ও তাঁর পরিবার (ইটিভি ভারত)

প্রত্যেক শিল্পকর্মের গায়ে নিখুঁত সব কারুকার্য, যা তাক লাগায় ৷ এমনকী, পাতা, ঘাস দিয়ে পৌরাণিক কাহিনি, রামায়ণের কাহিনিও বর্ণিত আছে গদা-তানপুরা-কলসির গায়ে ৷ চোখে না-দেখলে লেখায় বর্ণনা করা কঠিন এই সব শিল্প সামগ্রীর কথা।

artwork
গাছগাছালির সামগ্রী দিয়ে শিল্পকর্ম তৈরিতে মত্ত দেবু মুর্মু (ইটিভি ভারত)
  • প্রত্যন্ত গ্রামের একজন আদিবাসী শিল্পীর শিল্প সামগ্রী প্রসার পায় এক সময় ৷ শিল্পের টানে তাঁর বাড়িতে বহু বিদেশি মানুষজনও আসেন। দেবু মুর্মুর শিল্পের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে তৎকালীন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য তাঁকে সম্মাননা দিয়েছেন ৷ মিলেছে জাতীয় মেরিট। এমনকী, পেয়েছেন পণ্ডিত রঘুনাথ মুর্মু স্মৃতি পুরস্কার, বিশ্বভারতীর শিল্পসদনও তাঁকে সম্মাননা দিয়েছে ৷ শিল্পীর মা শ্রীমতি মুর্মু ও বউদি সৃজনী কিস্কুও যুক্ত এই শিল্পকর্মের সঙ্গে ৷

তবে বর্তমান সরকার ফিরেও তাকান না তাঁদের দিকে ৷ 'কথা দিয়ে কথা রাখেনি সরকার', বলছেন দেবু মুর্মু ৷ তবে তা নিয়ে শিল্পী ও তাঁর পরিবারের কোনও আক্ষেপ নেই ৷ নিজের শিল্পসত্ত্বা আরও বিকশিত করাই তাঁর লক্ষ্য ৷

artwork
দেবু মুর্মুর হাতের তৈরি জিনিস (ইটিভি ভারত)

শিল্পী দেবু মুর্মু বলেন, "প্রায় 35 বছর ধরে গাছগাছালির ছাল, ঘাস, বীজ, পাতা দিয়ে আমি নানা জিনিসপত্র বানাই ৷ ঘর সাজানোর জিনিস, গয়না ইত্যাদিও বানাই ৷ আমার বাড়িতে প্রচুর বিদেশি মানুষজনও আসেন ৷ এক সময় রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য আমাকে পুরস্কৃত করেছিলেন ৷ জাতীয় মেরিট স্কলারশিপ পেয়েছিলাম ৷ আমেরিকা, চিন, ইংল্যান্ড, জাপান, বাংলাদেশে গিয়েছে আমার তৈরি জিনিস ৷ কিন্তু, বর্তমান সরকার আমার জন্য কিছু করেনি। কথা দিয়েও কথা রাখেনি ৷ তাতে আমি কিছুই মনে করি না ৷ আমি নিজের এই কাজ নিয়ে অনেক পথ হাঁটতে চাই।"

প্রায় একই কথা বলেন শিল্পীর বউদি সৃজনী কিস্কু। তিনি বলেন, "দেবুদার কাছ থেকেই শিখেছি ৷ আমিও একই কাজ করি ৷ তবে বর্তমান সরকারের থেকে কোনও সহযোগিতা পাই না। তাতে খারাপও লাগে না।"

বোলপুর, 22 জুন: ইউক্যালিপটাস গাছের ছাল দিয়ে তানপুরা-ঘড়া থেকে শুরু করে ঘাস-পাতা দিয়ে নানা শিল্পকর্ম ৷ আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মুর এই সকল নিখুঁত শৈল্পিক কাজ পাড়ি দিয়েছে দেশ ছাড়িয়ে সূদুর আমেরিকা, ইংল্যান্ড, জাপান, চিন, বাংলাদেশে ৷ তৎকালীন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য তাঁকে সম্মানও জানিয়েছেন ৷ পেয়েছেন জাতীয় মেরিট ৷ তবে বর্তমান সরকার তাঁর দিকে ফিরেও চায়নি, কথা দিয়ে কথা রাখেনি ৷ যদিও, এই নিয়ে আক্ষেপ নেই পাড়ুইয়ের সরপুকুর ডাঙার আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মু ও তাঁর পরিবারের ৷

বর্ষীয়ান শিল্পী দেবু মুর্মুর গাছগাছালি দিয়ে তৈরি শিল্পকর্ম (ইটিভি ভারত)

বর্ষীয়ান এই শিল্পী আজও গাছগাছালির সামগ্রী দিয়েই নিজের শিল্পসত্ত্বা ধরে রেখেছেন ৷ বীরভূম জেলার পাড়ুই থানার সাত্তোর গ্রাম পঞ্চায়েতের আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রাম সরপুকুর ডাঙা । এই গ্রামের বাসিন্দা শিল্পী দেবু মুর্মু ৷ তালপাতা, শালপাতা, খেজুরপাতা, কলাগাছ, ঘাস, ইউক্যালিপটাস গাছের ছাল, তেঁতুল গাছের শিকড়, বিভিন্ন গাছের বীজ দিয়ে নানা শিল্পকর্ম গড়ে তোলায় দক্ষ তিনি। এই জিনিস দিয়ে তাঁর তৈরি তানপুরা, গদা, কলসি, খর্গ, গহনা, হাতপাখা, টোপর চোখে পড়ার মতো ৷

Tribal Artist Debu Murmu
আদিবাসী শিল্পী দেবু মুর্মু ও তাঁর পরিবার (ইটিভি ভারত)

প্রত্যেক শিল্পকর্মের গায়ে নিখুঁত সব কারুকার্য, যা তাক লাগায় ৷ এমনকী, পাতা, ঘাস দিয়ে পৌরাণিক কাহিনি, রামায়ণের কাহিনিও বর্ণিত আছে গদা-তানপুরা-কলসির গায়ে ৷ চোখে না-দেখলে লেখায় বর্ণনা করা কঠিন এই সব শিল্প সামগ্রীর কথা।

artwork
গাছগাছালির সামগ্রী দিয়ে শিল্পকর্ম তৈরিতে মত্ত দেবু মুর্মু (ইটিভি ভারত)
  • প্রত্যন্ত গ্রামের একজন আদিবাসী শিল্পীর শিল্প সামগ্রী প্রসার পায় এক সময় ৷ শিল্পের টানে তাঁর বাড়িতে বহু বিদেশি মানুষজনও আসেন। দেবু মুর্মুর শিল্পের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে তৎকালীন রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য তাঁকে সম্মাননা দিয়েছেন ৷ মিলেছে জাতীয় মেরিট। এমনকী, পেয়েছেন পণ্ডিত রঘুনাথ মুর্মু স্মৃতি পুরস্কার, বিশ্বভারতীর শিল্পসদনও তাঁকে সম্মাননা দিয়েছে ৷ শিল্পীর মা শ্রীমতি মুর্মু ও বউদি সৃজনী কিস্কুও যুক্ত এই শিল্পকর্মের সঙ্গে ৷

তবে বর্তমান সরকার ফিরেও তাকান না তাঁদের দিকে ৷ 'কথা দিয়ে কথা রাখেনি সরকার', বলছেন দেবু মুর্মু ৷ তবে তা নিয়ে শিল্পী ও তাঁর পরিবারের কোনও আক্ষেপ নেই ৷ নিজের শিল্পসত্ত্বা আরও বিকশিত করাই তাঁর লক্ষ্য ৷

artwork
দেবু মুর্মুর হাতের তৈরি জিনিস (ইটিভি ভারত)

শিল্পী দেবু মুর্মু বলেন, "প্রায় 35 বছর ধরে গাছগাছালির ছাল, ঘাস, বীজ, পাতা দিয়ে আমি নানা জিনিসপত্র বানাই ৷ ঘর সাজানোর জিনিস, গয়না ইত্যাদিও বানাই ৷ আমার বাড়িতে প্রচুর বিদেশি মানুষজনও আসেন ৷ এক সময় রাজ্যপাল গোপালকৃষ্ণ গান্ধি, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য আমাকে পুরস্কৃত করেছিলেন ৷ জাতীয় মেরিট স্কলারশিপ পেয়েছিলাম ৷ আমেরিকা, চিন, ইংল্যান্ড, জাপান, বাংলাদেশে গিয়েছে আমার তৈরি জিনিস ৷ কিন্তু, বর্তমান সরকার আমার জন্য কিছু করেনি। কথা দিয়েও কথা রাখেনি ৷ তাতে আমি কিছুই মনে করি না ৷ আমি নিজের এই কাজ নিয়ে অনেক পথ হাঁটতে চাই।"

প্রায় একই কথা বলেন শিল্পীর বউদি সৃজনী কিস্কু। তিনি বলেন, "দেবুদার কাছ থেকেই শিখেছি ৷ আমিও একই কাজ করি ৷ তবে বর্তমান সরকারের থেকে কোনও সহযোগিতা পাই না। তাতে খারাপও লাগে না।"

Last Updated : Jun 22, 2024, 9:23 PM IST
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.