পাকিস্তানের নির্বাচনে নতুন রাজনৈতিক দল, নেপথ্যে কি মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সঈদ?

author img

By PTI

Published : Feb 5, 2024, 12:56 PM IST

Hafiz Saeed

Pakistan General Election: আগামী বৃহস্পতিবার পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন ৷ সেই নির্বাচনে লড়ছে নতুন রাজনৈতিক দল পাকিস্তান মারকাজি মুসলিম লিগ ৷ অভিযোগ, এই দলের নেপথ্যে রয়েছে মুম্বই হামলার মূলচক্রী হাফিজ সঈদ ৷

ইসলামাবাদ, 5 ফেব্রুয়ারি: পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এবার অংশ নিতে চলেছে নতুন একটি রাজনৈতিক দল ৷ এই দলের নাম পাকিস্তান মারকাজি মুসলিম লিগ ৷ সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, এই রাজনৈতিক দলের নেপথ্যে রয়েছে 2008 সালে মুম্বইয়ে হওয়া সন্ত্রাসাবাদী হামলার মূলচক্রী হাফিজ সঈদ ৷

হাফিজ সঈদের লস্কর-ই-তইবা, জামাত-উদ-দাওয়া বা মিল্লি মুসলিম লিগ আগেই নিষিদ্ধ হয়েছে ৷ কিন্তু এই সংগঠনগুলির সঙ্গে বিভিন্ন সময় যাঁরা জড়িত ছিলেন, তাঁরাই পাকিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে এই পাকিস্তান মারকাজি মুসলিম লিগের প্রার্থী হয়েছেন, এমনই একটি প্রতিবেদনে দাবি করেছে বিবিসি উর্দু ৷ তাদের আরও দাবি, প্রার্থীদের মধ্যে হাফিজ সঈদের ছেলে, জামাই-সহ একাধিক আত্মীয়ও রয়েছেন ৷

হাফিজ সঈদ এখন জেলে ৷ তাকে পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদ বিরোধী আদালত 31 বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ৷ লাহোরের জেলে বন্দি এই সঈদকে 2008 সালের 10 ডিসেম্বর ‘বিশ্ব সন্ত্রাসবাদী’ বা গ্লোবাল টেরোরিস্ট হিসেবে ঘোষণা করে রাষ্ট্রসংঘ ৷ উল্লেখ্য, এই ঘোষণার কয়েকদিন আগেই, 26 নভেম্বর মুম্বইয়ে সন্ত্রাসবাদী হামলা হয় ৷ যে হামলার মূলচক্রী ছিল এই হাফিজ সঈদ ৷

শুধু মুম্বই হামলা নয়, ভারতে আরও একাধিক জঙ্গি হামলার সঙ্গে নাম জড়িয়ে রয়েছে হাফিজের ৷ তাঁকে ভারতীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি হেফাজতে নিতে চায় ৷ সেই কারণে গত 29 ডিসেম্বর তাঁকে প্রত্যর্পণ করানোর জন্য পাকিস্তানকে বলেছিল ভারত ৷ যদিও সেই বিষয়ে এখনও ফলপ্রসূ কোনও সমাধানসূত্র বের হয়নি ৷

অন্যদিকে, আগামী বৃহস্পতিবার হতে চলা পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে সঈদের ছেলে হাফিজ তালহাও ভোটে লড়ছে ৷ তাকে লস্কর-ই-তইবার দ্বিতীয় শীর্ষনেতা হিসেবে ধরা হয় ৷ তার ভোটে লড়ার বিষয়টিও ভারতের নজরে রয়েছে ৷ ভারত মনে করছে যে এই বিষয়টি নতুন নয় ৷ পাকিস্তান বরাবর সন্ত্রাসবাদে মদত দিয়ে এসেছে ৷ হাফিজ তালহাও মারকাজি মুসলিম লিগের হয়েই ভোটে লড়ছেন ৷ যদিও দলের মুখপাত্র এই রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদী কোনও সংগঠনের কোনোরকম যোগ থাকার কথা অস্বীকার করেছেন ৷

এর আগে 2018 সালেও রাজনৈতিক দলের আড়ালে হাফিজ সঈদের সহযোগীরা ভোটে লড়ার চেষ্টা করেছিল ৷ কিন্তু সেবার পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন মিল্লি মুসলিম লিগ নামে ওই রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করে দেয় ৷ কারণ, ওই সংগঠনের বেশ কয়েকজন নেতাকে আগেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিষিদ্ধ করেছিল ৷ ফলে সেবার তাদের প্রচেষ্টা সফল হয়নি ৷ কিন্তু এবার ভোটে লড়ার প্রচেষ্টা অন্তত সফল হয়েছে ৷ যদিও 2018 সালের অন্য একটি রাজনৈতিক দলের হয়ে তারা ভোটে লড়েছিল ৷

সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের সঙ্গে যোগ রয়েছে, এমন রাজনৈতিক দলকে কিভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে দেওয়া হচ্ছে ? বিবিসির তরফে এই প্রশ্ন করা হয়েছিল পাকিস্তানের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের তথ্যমন্ত্রী মুর্তাজা সোলাঙ্গিকে ৷ তিনি অবশ্য পুরো ঘটনার দায় চাপিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের উপরে ৷ তাঁর দাবি, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নীতি তৈরি করার কোনও এক্তিয়ার নেই ৷ তাই এখানে তাঁদের সরকারের কোনও কিছু করণীয় নেই ৷ এই বিষয়ে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া দেওয়া হয়নি ৷

সংবাদসংস্থা - পিটিআই

আরও পড়ুন:

  1. প্রাক্তন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ও তাঁর স্ত্রীর 14 বছরের জেল
  2. বছর ঘুরলেই পাকিস্তানে নির্বাচন, প্রথম হিন্দু মহিলা হিসেবে মনোনয়ন পেশ সাভিরার
  3. 'কার্গিল দখলের বিরোধিতা করেছিলাম, তাই পারভেজ মুশারফ গদিচ্যুত করেন', দাবি নওয়াজ শরিফের
ETV Bharat Logo

Copyright © 2024 Ushodaya Enterprises Pvt. Ltd., All Rights Reserved.